বিজ্ঞানীরা দাবি করছে, হাইড্রোজেন ধারা তৈরি কঠিন পদার্থ এখন পর্যন্ত শক্তিশালী কঠিন পদার্থ

15

বিজ্ঞানীরা হাইড্রোজেন কে অধিক চাপ দিয়ে কঠিন পদার্থে পরিণত করেছে।

পৃথিবীর পরিবেশের নরমাল চাপের থেকে 40 লক্ষ গুণ বেশি চাপ দিয়ে নরমাল হাইড্রোজেন কে কঠিন হাইড্রোজেনে রুপান্তরিত করেছেন।

বিজ্ঞানীরা 13 ই জুন একটি রিপোর্টে এটি দাবি করেছেন arXiv.org এ।

এই বিষয়টা নিয়ে আরো অনেক গবেষণা করা হবে। ওয়াশিংটনে বিজ্ঞান বিভাগের কার্নেগী ইনস্টিটিউটের পদার্থবিজ্ঞানী আলেকজান্ডার গনচারভ বলেছেন, এখন পর্যন্ত আবিষ্কৃত সবচেয়ে নিখুঁত ধাতু।

তবে অনেক বিজ্ঞানী ভিন্ন ধরনের কথা বলছেন। এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞানী ইউজিন গ্রেগরিয়ানজ বলেছেন, তিনি এই নতুন গবেষণা উপর সন্তুষ্ট নয়। এবং তিনি আরো বলেন যে অতীতেও এরকম বহুবার দাবি করা হয়েছে হাইড্রোজেনের ধাতু কিন্তু প্রতিবারই তো ভুল প্রমাণিত হয়েছে।

ফ্রান্সের পারমাণবিক শক্তি কমিশনের পদার্থবিদ পল , এই নিবন্ধটির উপর মন্তব্য করেন নি।

বিজ্ঞানীরা এই হাইড্রোজেনের কঠিন পদার্থের উপর অনেক গবেষণা করছেন। কারণ অনেকে বলতে চাইছে যে হাইড্রোজেনের ধাতুর হবে সুপার কন্ডাক্টর অর্থাৎ বিদ্যুৎ, এর ভেতর কোন বাধা ছাড়াই চলাচল করতে পারবে।

বর্তমানে যেসব সুপার কন্ডাক্টর আছে সেগুলো কে খুবই কম তাপমাত্রায় নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু যদি হাইড্রোজেন কঠিন পদার্থ হতে পারে তাহলে তা রুম তাপমাত্রায় সুপার কন্ডাক্টর হবে।

বিজ্ঞানীদের আসল লক্ষ্য হলো এমন একটি সুপার কন্ডাক্টর আবিষ্কার করা যার জন্য কোন হাই প্রেশার অথবা কুলিং এর প্রয়োজন হয় না। যদি এমন কোন ধাতু আবিষ্কার করা হয় তাহলে, ইলেকট্রনিক্স যন্ত্রাংশ ব্যবহার করা হবে এবং প্রচুর পরিমাণ এনার্জি বেঁচে যাবে।

ধাতু তৈরি করার জন্য Loubeyre এবং তার সহকর্মীরা দুটো হিরার মাঝে হাইড্রোজেন গ্যাস কে সংকুচিত করে।

তারা ডায়মন্ডের ভেতর ইনফ্রারেড লাইট পাঠায় এবং তার মাধ্যমে হাইড্রোজেন গ্যাসের সংকুচিত করে।

এই ধাতুর গুনাগুন নিয়ে এখনও বিজ্ঞানীরা অনিশ্চিত এবং এটি কি আসলেই সুপার কন্ডাক্টর কি না তানিয়ার গবেষণা দরকার রয়েছে।

আরো পড়ুন -
 আপনার হাতের সোনা হয়তো কলাপ্সারস নামক ডাইং স্টার ধাঁরা তৈরি
 পৃথিবীর সব ভারী ধাতু সুপারনোভা বিস্ফোরণ থেকে হয়েছে